coke, Pepsi, mojo

কোমল পানীয় খাচ্চেন ? আপনার নিজের প্রতি মায়া আছে তো?

লাইফস্টাইল

Your ads will be inserted here by

Easy Plugin for AdSense.

Please go to the plugin admin page to
Paste your ad code OR
Suppress this ad slot.

(healthpatner.com) কোমল পানীয় ছাড়া যে কোন উৎস, ঘরোয়া অনুষ্ঠান কিংবা যে কোন পার্ঠিতে কোমল পানীয় ছাড়া বিকল্প কিছু যেন চিন্তাই করা যায় না। কোমল পানীয় গ্রহণ করেন না এমন লোকের সংখ্যা খুবই কম। কোমল পানীয় এখন ফ্যাশন এ পরিণত হয়ে গেছে। আপনি শুনে আশ্চায হবেন এবং সত্যি এটা বিস্ময়কর যে কোমল পানীয় শরীরের উপকারি দিকের চেয়ে অপকারিতা অনেক বেশি।

কোমল পানীয় বলতে: Pepsi, Coke, Euro Cola, RC, Sprite, , Mojo, Mountain Dew, Lemon, Virgin, Fanta অথবা বিভিন্ন বাহারি প্রতিষ্ঠানেরে এনার্জি ডিংকস বুঝে থাকি। এগুলো  সারা বিশ্বে অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি পানীয়।health tips

আমাদের চির পরিচিত ও নিত্যদিনের ব্যবহারিত এই কোমল পানীয় আমাদর শরীরে মারাত্নক ক্ষতি করে থাকে, যার কারণে আমাদের এই নিত্যদিনের অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে। অর্থাৎ কোমল পানীয় পান বন্ধ করতে হবে। আসুন জেনে নিই কোমল পানীয়ের ক্ষতির কিছু নমুনা …….

>>> Aspartame নামক এক বিশেষ উপাদান Pepsi তে রয়েছে। যা মূলত মস্তিস্কের জন্যে খুবই  ক্ষতিকর | এছাড়া এতে Carbonated Water ও  Phosphoric Acid তো থাকছেই |

>>>> ওজন বৃদ্ধি করে: আপনি শরীরে ওজন কমাতে চান আর সেজন্য প্রতিদিন নিয়মমাপিক ব্যায়াম করেন, আর অভ্যাস বশত কোমল পানীয় পান করে যাচ্ছেন তাহলে আপনার শরীরের ওজন তো কমবেই না বরং আরো বেড়ে যাবে। তাই নিজেই ভাবুন কোমল পানীয় আপনার জন্য কতটা দরকারী নাকি পরিত্যাজ্য।

>>> পানিশূণ্যতা সৃষ্টি: কোমল পানীয়তে যেহেতু প্রচুর পরিমাণে চিনি থাকে, এই চিনি শরীরে পানি শূন্যতা সৃষ্টির জন্য দায়ী। এছাড়া নিয়মিত কোমল পানীয় পান করলে দাতের ক্ষয় ত্বরান্বিত হয়।

>>> ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুকি বৃদ্ধি করে: যে কোন কোমল পানীয়তে চিনি স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি থাকে, তুলনায় বেশি পরিমাণ চিনি রক্তের ব্লাড সুগার লেভেলকে বাড়িয়ে দেয়, আবার ব্লাড সুগার লেভেল বাড়িয়ে দেওয়ার পর ইনসুলিনের স্বাভাবিক প্রক্রিয়া ব্যাহত হয়… আর এটা সহজে অনুমান যোগ্য যে ইনসুলিন প্রক্রিয়া ব্যাহত হওয়া মানে ডায়াবেটিস ঝুকির পরিমাণ বহুগুণে বেড়ে যাওয়া। আপনি জেনে অবাক হবেন কোমল পানিয় প্রস্ততকারী প্রতিষ্ঠানগুলো পৃথিবীতে সবচাইতে বেশি চিনি ব্যবহার করে থাকে। তাই আপনার শরীরের প্রতি খেয়াল করে কোমল পানীয় এড়িয়ে চলুন।

coke, pepsi

>>>> হার ক্ষয় করে: কোমল পানীয়তে থাকা ফসফরিক এসিড দেহের প্রয়োজনীয় ক্যালসিয়াম শুসে নেয় এতে শরীরের হাড় দুর্বল হয়ে যায়। এই ফসফরিক এসিড পরিপাক ক্রিয়ার ও ব্যাঘাত ঘটায় , এটি যকৃতে এসিডের পরিমাণ বাড়ায়, তাতে হজম শক্তির উপর প্রভাব পড়ে, লক্ষ্য করে দেখবেন এটি ক্ষুদামন্ধা বৃদ্ধি করে থাকে।

>>>> ক্যানসার এর ঝুকি বাড়ায়: কোমল পানীয়তে আছে প্রচুর পরিমাণে ক্যাফেইন, যা দেহে ক্যানসার ও উচ্চ রক্তচাপ বাড়ায়। কোমল পানীয় শরীরের অক্সিজেনের পরিমাণ কমিয়ে দেয়, যুক্তরাষ্টের ক্যানসার বিশেষঞ্জ কন্টারাইজ বলেন, ক্যানসার হলো একটি বৃক্ষের মতো আর অক্সিজেনবিহীন চিস্যু হলো এর ধারক।

>>>> কোমল পানীয় পানের ফলে কিডনিতে পাথর হওয়ার সম্ভবনা বেড়ে যায় এছাড়া বদহজম ও হয়। স্টোকের ঝুকিও বেড়ে যায়।

>>> কোমল পানীয়তে টক্সিন জাতীয় উপাদান থাকে। যেমন: DDT, chlorpyrifos, lindane এবং malathion থাকে  এতে কোলন ক্যানসার ও হজম প্রক্রিয়া নস্ট হয়ে যায়। এছাড়া এত থাকা ক্যাফেইন ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়।

কিছু সর্তকত বার্তা: আমাদের পাশ্ববর্তী দেশ ভারতের উচ্চ আদালত কোলা, পেপসি নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

আমেরিকার স্কুল ও বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতে কোলা এবং পেপসি নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্বক ক্ষতিকর কোমল পানীয়তে যে সব উপাদান থাকে সেগুলোর মধ্যে =কোকা পাওডার,

সোডা, ফেভার, স্যাকারিন, কীটনাশক, ক্যাফেইন, ও কৃত্রিম রঙ। এগুলো শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকর।

কোমল পানীয়তে কোন পুষ্টি উপাদান না থাকায় এটি আমাদের দেহের কোন উপকারে আসেনা। যারা হেলথি লাইফ চান, সুস্থ্য ও সুস্বাস্থ্য ধরে রাখতে চান তারা কোমল পানীয় কে দূরে রাখবেন। এটা আপনার জন্য অবশ্যই বর্জনীয়। কোমল পানীয় বদলে প্রাকৃতিক ভাবে পাওয়া যায় এমন পানীয় পান করুন। যেমন: ডাবের পানি।

আসা করি আপনার নিজের ও পরিবারের ভালোর জন্য এ কোমল পানীয় কে দুরে রাখবেন ।আসুন নিজে ভালো থাকি অন্যকে ভালো থাকার পরামর্শ দিই।

Leave a Reply